চাকরির ইন্টারভিউ : যে বিষয়গুলো গুরুত্বপূর্ণ

চাকরির সাক্ষাতকারের আগের দিন যা করনীয়

সাক্ষাতকারের আগের দিন , চাঞ্চল্যকর একটি মুহূর্ত বলা চলে। মনের মাঝে চলতে থাকে নানান স্বপ্ন ও দুঃস্বপ্ন।কিন্তু সাক্ষাতকারের এই আগের দিনটিকে যদি যথাযথ ভাবে ব্যবহার করা যায় তাহলে তা নিঃসন্দেহে সাফল্য এনে দিতে পারে। তাই জেনে নিন কিভাবে চাকরির সাক্ষাতকারের আগের দিন প্রস্তুতি নিবেন।


তথ্যই সর্ব্বতম পন্থা

প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে যত বেশি সম্ভব তথ্য সংগ্রহ করুন , মনে রাখবেন এই সকল তথ্য আপনার সাক্ষাতকারটিকে সফলতার দিকে নিয়ে যাবে। তাই জানুন,প্রতিষ্ঠানের খুঁটি নাটি সম্পর্কে, তাদের প্রতিযোগী কারা, বাজারে তাদের অবস্থান কেমন , তাদের কর্ম পরিবেশ ইত্যাদি। আপনার সংগৃহীত মূল্যবান তথ্য সাক্ষাৎকারের দিন আপনাকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে এবং নিয়োগকর্তারা বুঝবেন আপনি এই পদের জন্য কাজ করতে ইচ্ছুক ফলে তাদের আপনার প্রতি একটি ইতিবাচক মনোভাব তৈরি হবে।


নিজের উপর প্রস্তুতি

আপনার নিজের সম্পর্কে কি বলবেন তা আগে থেকে ঠিক করে নিন , খেয়াল রাখবেন তা যাতে ২ থেকে ৩ মিনিটেই বলা যায়, যাতে আপনাকে যখন জিজ্ঞাসা করা হবে আপনার সম্পর্কে বলুন তা যেন আপনি সহজ ও সাবলীল ভাষায় বলে দিতে পারেন, তবে লক্ষ্য রাখবেন কোনো ভাবেই যাতে তা মুখস্থ না শুনায়।


আগে থেকেই তৈরী

সম্ভাব্য কিছু প্রশ্নের উত্তর যা প্রায়ই সাক্ষাৎকারে জিজ্ঞাসা করা হয়ে থাকে তাদের উত্তর আগে থেকে তৈরি করে নিন। সাক্ষাতকারে আসা এই রকম কিছু পরিচিত প্রশ্ন হলো:

১. আপনার সম্পর্কে কিছু বলুন?

২. আপনি পূর্বের চাকরিটি কেন ছেড়েছেন / কেন ছাড়তে চাচ্ছেন?

৩. এই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আপনি কি জানেন ?

৪. আপনার সামর্থ্য ও দুর্বলতাগুলো কি কি ?

৫. আপনি এই প্রতিষ্ঠানের জন্য কেন কাজ করতে চান ?

৬. আপনার সব থেকে বড় অর্জন কি?

৭. আমরা কেন আপনাকেই নির্বাচন করবো ?

৮. আপনি কত টাকা বেতন প্রত্যাশা করছেন?

৯. আপনি যদি বস হতেন তাহলে আপনি এই প্রতিষ্ঠানের কোন বিষয়টি পরিবর্তন করতেন ?

 

মনে রাখবেন ভালো প্রস্তুতিই পারে সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিতে , আপনার আত্মবিশ্বাসকে সুদৃহ করতে যথারীতি নিজেকে সফলভাবে উপস্থাপন করতে। তাই প্রস্তুতিটি নিন সাক্ষাতকারের আগের দিন থেকেই যথাযথ ভাবে।

Leave a Reply